December 1, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, October 13th, 2022, 6:35 pm

রংপুরে বেড়েছে নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যাদির দাম

আব্দুর রহমান মিন্টু, রংপুর :

রংপুরে সপ্তাহের ব্যবধানে বেড়েছে আটা, ময়দা ও চিনির দাম। সেইসঙ্গে বেড়েছে পোলট্রি মুরগি ও আলুর দাম। তবে কিছু সবজির দাম গত সপ্তাহের তুলনায় কমেছে। কাঁচা মরিচের দামও কমেছে। তবে চাল, ডাল ও মাছ-মাংসের দাম অপরিবর্তিত রয়েছে।
রংপুর নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা বাজারে খোলা চিনি ৯০ টাকা থেকে বেড়ে ৯৫ টাকা, প্যাকেটজাত চিনি ৯৫ টাকা, প্যাকেট আটা ৫৩-৫৫ টাকা থেকে বেড়ে ৬০ টাকা, খোলা আটা ৫০-৫২ টাকা থেকে বেড়ে ৫৫ টাকা এবং ময়দা ৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আগের মতোই মসুর ডাল (মাঝারি) ১১০-১২০ টাকা, চিকন ১৩৫-১৪০ টাকা, মুগডাল ১৪০-১৫০ টাকা ও বুটডাল ৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
পোলট্রি মুরগির ডিমের হালি গত সপ্তাহের দরেই বিক্রি হচ্ছে ৪৪-৪৫ টাকায়। এছাড়া খুচরা পর্যায়ে প্রতি কেজি টমেটো ১৫০-১৬০ টাকা, গাজর ১৫০-১৬০ টাকা, করলা কিছুটা কমে ৫০-৬০ টাকা, শসা ৪০-৪৫ টাকা, চিকন বেগুনের দাম কমে ৩৫-৪০ টাকা, গোল বেগুন ৫৫-৬০ টাকা, পেঁপে ১৫-২০ টাকা, লেবু প্রতি হালি ৬-৮ টাকা, কাঁচা মরিচ ৬৫-৭০ টাকা থেকে কমে ৫০-৫৫ টাকা, শুকনা মরিচ ৪৫০-৫০০ টাকা, লাউ প্রতি পিস ৩০-৩৫ টাকা, ধনেপাতার দাম কমে হয়েছে ৭০-৮০ টাকা, কাঁচকলা হালি ২৫-৩০ টাকা, ঢ্যাঁড়শ আগের মতোই ৫৫-৬০ টাকা, বরবটি ৪৫-৫০ টাকা, পটল ৪০-৪৫ টাকা, মিষ্টিকুমড়া কেজি ৫৫-৬০ টাকা, চালকুমড়া (আকারভেদে) ৩০-৩৫ টাকা, ঝিঙে ৫০-৬০ টাকা, কাকরোলের দাম কমে ৩৫-৪০ টাকা, শিম ১১০-১২০ টাকা, মুলার দাম কমে ৩৫-৪০ টাকা, বাঁধাকপি ৪০-৪৫ টাকা এবং ফুলকপি ৯০-১০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।
দেশি আদা পুরাতনটা আগের মতোই ১৪০-১৬০ ও নতুন আদা ১০০-১২০ টাকা এবং রসুন ৭০-৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। বাজারে সবধরনের শাকের আঁটি পাওয়া যাচ্ছে ১০-১৫ টাকায়।
খুচরা বাজারে কার্ডিনাল আলু গত সপ্তাহের মতো ২৩-২৫ টাকায় বিক্রি হলেও শিল আলু ৩৫-৩৮ টাকা থেকে বেড়ে ৪৫-৪৮ টাকা, ঝাউ আলু ৩৫ টাকার জায়গায় ৪৫ টাকা এবং সাদা আলু ৫০ টাকা কেজি দরে পাওয়া যাচ্ছে।
লালবাগ বাজারের সবজি বিক্রেতা আলম মিয়া বলেন, গত সপ্তাহের তুলনায় সবজির দাম কিছুটা কমেছে। তবে আমদানিনির্ভর বেশিরভাগ সবজির দাম অপরিবর্তিত রয়েছে। শীতকালীন সবজি বাজারে আসতে শুরু করলেও দাম এখনো সহনীয় পর্যায়ে আসেনি বলেও জানান তিনি। বাজার ঘুরে দেখা যায়, গরুর মাংস ৬২০-৬৫০ টাকা এবং খাসির মাংস ৮০০-৯০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। খুচরা বাজারে ব্রয়লার মুরগির কেজি গত সপ্তাহের তুলনায় ১০ টাকা বেড়ে ১৭০-১৮০ টাকা, পাকিস্তানি মুরগি ৩০০-৩১০ টাকা, পাকিস্তানি লেয়ার ২৭০-২৮০ টাকা এবং দেশি মুরগি আগের মতোই ৩৯০-৪০০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে। খুচরা বাজারে এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন ১৭৮ টাকা এবং খোলা সয়াবিন তেল ১৬০-১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।
সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা বাজারে চালের দামে তেমন হেরফের হয়নি। স্বর্ণা (চিকন) চালের দাম গত সপ্তাহের মতোই ৫৪-৫৫ টাকা এবং মোটা ৪৮-৫০ টাকা, বি আর২৮ ৬০-৬২ টাকা, মিনিকেট ৭২-৭৫ টাকা এবং নাজিরশাইল ৮৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।