May 29, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Friday, March 22nd, 2024, 8:18 pm

রাঙ্গামাটিতে চিকিৎসার অভাবে দেড় মাসে ৫ জনের মৃত্যু

রাঙামাটির সীমান্তবর্তী বরকল উপজেলার ভূষণছড়া ইউনিয়নের ঠেগা চান্দবী ঘাট এলাকায় প্রয়োজনীয় ওষুধ ও চিকিৎসার অভাবে তীব্র জ্বর, পেটব্যথা ও বমির সঙ্গে রক্তক্ষরণে গত দেড় মাসে এক শিশুসহ পাঁচজন মারা গেছেন। এ রোগে আরও ১৪ জনের বেশি আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা গেছে।

মৃতরা হলেন- চিত্তি মোহন চাকমা, বিমলেশ্বর চাকমা, ডালিম কুমার চাকমা, পত্ত রঞ্জন চাকমা, সোনি চাকমা।

এরমধ্যে ডালিম কুমার চাকমা ও সোনি চাকমা বাবা-মেয়ে।

স্থানীয়রা জানান, মৃত্যুর আগে প্রত্যেকেরই তীব্র জ্বর ও বমির সঙ্গে রক্তক্ষরণ হয়েছে। এছাড়া আরও ১৪ জনের পেটব্যথা, জ্বর দেখা দেওয়ায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে ওই এলাকায়।

প্রথমদিকে সাধারণ জ্বর মনে করলেও দেড় মাসে পরপর ৫ জনের মৃত্যুতে এলাকাবাসীর মনে ভয় ও আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়েছে।

সর্বশেষ গত ১৭ মার্চ ডালিম কুমার চাকমার মেয়ে সোনি চাকমা জ্বরে আক্রান্ত হয়। এর সঙ্গে পেট ব্যথা ও বমির সঙ্গে রক্তক্ষরণ হয়। পরে মারা যায়। এর দুই দিন আগে ১৫ মার্চ চিত্তি মোহন চাকমা একই রোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যুবরণ করেন।

২৬ ফেব্রুয়ারি ডালিম কুমার চাকমা, ৭ ফেব্রুয়ারি বিমলেশ্বর চাকমা এবং সর্বপ্রথম গত ১০ জানুয়ারি পত্ত রঞ্জন চাকমা পেট ব্যথা, জ্বর ও বমির সঙ্গে রক্তক্ষরণে মারা যান।

সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ৫ জনের মৃত্যুর খবরটি ছড়িয়ে পড়ার পর দুর্গম এলাকায় বৃহস্পতিবার একটি মেডিকেল টিম পাঠানো হয়।

বরকল উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মংক্যসিং রাখাইন সাগর বলেন, এলাকাটি অতি দুর্গম। সেখানে কোনো মোবাইল নেটওয়ার্ক নেই। আশেপাশে কোনো স্বাস্থ্য কেন্দ্র নেই। এতগুলো মানুষ মারা গেছে, সে খবর এতদিন আমাদের কেউ দেয়নি। খবর পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে আমরা মেডিকেল টিম গঠন করে সেখানে গিয়ে খোঁজখর নিচ্ছি। চিকিৎসার ব্যবস্থা করা হয়েছে।

রাঙ্গামাটির সিভিল সার্জন ডা. নীহার রঞ্জন নন্দী বলেন, আমার ধারণা খাদ্যে বিষক্রিয়া থেকেই এই ধরনের ঘটনা ঘটতে পারে। মেডিকেল টিম নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষা-নিরীক্ষার পর প্রকৃত বিষয়টি জানা যাবে।

তিনি আরও জানান, বরকল উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা মংক্যসিং রাখাইন সাগরের নেতৃত্বে ৭ জনের একটি মেডিকেল টিম চান্দবীঘাট এলাকায় গেছে। এলাকাটি অতি দুর্গম। আমরা তাৎক্ষণিকভাবে মেডিকেল টিম গঠন করে চান্দবীঘাটে পাঠিয়েছি। আর যেন কোনো প্রাণহানি না হয় সেজন্য আমরা সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে চিকিৎসার ব্যবস্থা নিচ্ছি। প্রয়োজনে রোগীদের রাঙ্গামাটি এনে চিকিৎসা দেওয়া হবে।

—–ইউএনবি