June 27, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Friday, May 6th, 2022, 8:30 pm

রামগড়ে ব্যবসায়ীর ৪ গুদামে ৫৭ হাজার লিটার সয়াবিন তেল মজুদ

দুই মজুদদারকে ১ লাখ ২৫ হাজার টাকা জরিমানা

জেলা প্রতিনিধি, খাগড়াছড়ি :
খাগড়াছড়ির রামগড়ের সোনাইপুল বাজারে এক ব্যবসায়ীর ৪টি গুদামে ৫৭ হাজার লিটার সয়াবিন তেলের অবৈধ মজুদের সন্ধান পেয়েছে প্রশাসন। অবৈধভাবে বিপুল পরিমান ভোজ্যতেল মজুদ করে বাজারে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টির দায়ে রামগড় পৌরসভার সোনাইপুল বাজারের মেসার্স খাঁন ট্রেডার্স নামে ঐ ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানের মালিক ফজলুল করিম পাটোয়ারীকে এক লক্ষ টাকা জরিমানা করা হয়েছে। এ সময় একই অপরাধে ঐ বাজারের মেসার্স আলমগীর স্টোরকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। শুক্রবার(৬ মে)বিকেলে আকস্মিক অভিযান চালিয়ে ভ্রাম্যমাণ আদালত ঐ দুই ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানকে এ জরিমানা করেন।
রামগড় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খোন্দকার মো: ইখতিয়ার উদ্দীন আরাফাত ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক হিসেবে এই জরিমানা করেন।
ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক খোন্দকার মো: ইখতিয়ার উদ্দীন আরাফাত বলেন, অবৈধ মজুদের গোপনসূত্রে খবর পেয়ে রামগড় পৌরসভার সোনাইপুল বাজারের মেসার্স খাঁন ট্রেডার্স নামে একটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানে প্রথমে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে সোনাইপুল বাজারের বিভিন্ন স্থানে ঐ প্রতিষ্ঠানের মালিক ফজলুল করিম পাটোয়ারীর ৪টি গুদামের সন্ধান পাওয়া যায়। ৪টি গুদামে প্রায় ৫৭ হাজার লিটার সয়াবিন তেলের মজুদ পাওয়া যায়। ভ্রাম্যমাণ আদালতের বিচারক খোন্দকার মো: ইখতিয়ার উদ্দীন আরাফাত আরও জানান, ঔ ব্যবসায়ীর কোন ডিলিং লাইসেন্স নেই। ডিলিং লাইসেন্স ছাড়া ডিলারশীপ ব্যবসা অবৈধ। বাজারে কৃত্রিম সংকট সৃষ্টি করে অধিক মুনাফার জন্যই এভাবে বিপুল পরিমান তেল মজুদ করা হয়েছে। একই বাজারের মেসার্স আলমগীর সেটার নামে আরেকটি ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠানেও অনুরুপ অভিযান পারিচালনা করে অবৈধ মজুদ পাওয়া যায়। তিনি বলেন, ডিলিং লাইসেন্স ব্যতিত ভোজ্য তেল এর ডিলার হিসেবে ব্যবসা পরিচালনা করা এবং সয়াবিন তেলের অবৈধ মজুদের অপরাধে অত্যাবশকীয় পণ্য নিয়ন্ত্রণ আইন ১৯৫৬ এর ৬ ধারায় বাজারের মেসার্স খাঁন ট্রেডার্সকে এক লক্ষ টাকা এবং মেসার্স আলমগীর স্টোরকে ২৫ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। অভিযানকালে স্থানীয় পৌর কাউন্সিলর মো: জসিম উদ্দিনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।
রামগড় উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট খোন্দকার মো: ইখতিয়ার উদ্দীন আরাফাত বলেন, এ ধরণের অভিযান অব্যাহত থাকবে।