December 4, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, October 27th, 2022, 3:24 pm

রামগড়ে স্কুলের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে ডিসি প্রতাপ বিশ্বাস

স্কুলের জন্য মসজিদের ভূমি দান সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বিরল দৃস্টান্ত

নিজস্ব সংবাদদাতা, রামগড় :
খাগড়াছড়ির জেলা প্রশাসক প্রতপ চন্দ্র বিশ্বাস বলেছেন,‘ এলাকায় স্কুল প্রতিষ্ঠার জন্য মসজিদের জায়গা দান করার ঘটনা সাম্প্রদায়িক সম্প্রীতির বিরল দৃস্টান্ত। শিক্ষা আলো ছড়াতে গ্রামবাসিদের আন্তরিকতার বহি:প্রকাশ।’ তিনি বলেন, এভাবে সকলে এগিয়ে এলে পার্বত্য এলাকার শিক্ষায় পিছিয়ে থাকা জনগোষ্ঠী আলোকিত হবে। বৃহষ্পতিবার(২৭ অক্টোবর) রামগড় উপজেলার পাতাছড়া ইউনিয়নের মাধ্যমিক স্কুলবিহীন এলাকা কলাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন। রামগড় উপজেলা নির্বাহি অফিসার খন্দোকার মো: ইখতিয়ার উদ্দীন আরাফাতের সভাপতিত্বে এ ভিত্তি প্রস্তর স্থাপন অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য দেন, রামগড় উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি মোস্তফা হোসেন, পাতাছড়া ইউপি চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী নুরুল আলম, পাতাছড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক রু¤্রুচাই চৌধুরি, হেডম্যান বরুন রোয়াজা প্রমুখ। সহকারি উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা উ¤্রাচিং চৌধুরির সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা সহকারি কমিশনার(ভূমি) মানস চন্দ্র দাশ, থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো: মিজানুর রহমান, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আবু কাউসার, সহকারি তথ্য কর্মকর্তা মো: বেলয়েত হোসেন প্রমুখ।
খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক স্কুল ভবননির্মাণের জন্য ৫ লক্ষ টাকা একং মাঠ উন্নয়নের জন্য ৩ লক্ষ টাকার চেক প্রদান করেন। তিনি আরও বলেন, কলাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠায় সম্ভব সব ধরণের সহযোগিতা করবে জেলা প্রশাসন। পরে জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস কলাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয়ের ভিত্তিপ্রস্তরের ফলক উন্মোচন করেন।
রামগড় উপজেলা নির্বাহি অফিসার খন্দোকার ইখতিয়ার উদ্দীন আরাফাত মাধ্যমিক স্কুলবিহীন প্রত্যন্ত কলাবাড়ি এলাকায় এ স্কুল প্রতিষ্ঠায় স্থানীয় বাসিন্দাদের উদ্বুদ্ধ করেন। এরপ্রেক্ষিতে কলাবাড়ি মসজিদ পরিচালনা কমিটি কলাবাড়ি উচ্চ বিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার জন্য মসজিদের নিজস্ব জায়গা থেকে তিন একর ভূমি স্কুলের নামে দান করার সিদ্ধান্ত নেন।