December 2, 2021

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, September 26th, 2021, 9:19 pm

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় মিনুসহ ৩ বিএনপি নেতার জামিন

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় রাজশাহী বিএনপির শীর্ষ তিন নেতাকে মহানগর দায়রা জজ এএইচএম ইলিয়াস হোসাইন তাদের জামিন আবেদন মঞ্জুর করেন। ছবিটি রোববার রাজশাহী কোর্ট চত্বর থেকে তোলা।

অনলাইন ডেস্ক :

রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র মিজানুর রহমান মিনুসহ বিএনপির তিন কেন্দ্রীয় নেতার জামিন মঞ্জুর করেছেন আদালত। রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) সকাল সাড়ে ১০ টার দিকে বিএনপির কেন্দ্রীয় তিন নেতা মিজানুর রহমান মিনু, মোহাম্মদ মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল এবং অ্যাডভোকেট শফিকুল হক মিলন আদালতে আত্মসমর্পণের পর জামিনের আবেদন করেন। পরে দুপুর পৌনে ৩টার দিকে রাজশাহী মহানগর দায়রা জজ আদালতের বিচারক ওএইচএম ইলিয়াস হোসাইন এ আদেশ দেন। আগামী ৩০ নভেম্বর পর্যন্ত ৫ হাজার টাকার বন্ডে তিনজনের প্রত্যেকের জামিন মঞ্জুর করেন বিচারক। বিএনপি নেতাদের আত্মসমর্পণকে কেন্দ্র করে এ সময় আদালত প্রাঙ্গণে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা নেওয়া হয়। এর আগে গত ২৩ সেপ্টেম্বর রাজশাহী মহানগর বিএনপির তিন শীর্ষ নেতা রাষ্ট্রদ্রোহ মামলায় মহানগর দায়রা জজ আদালতে আত্মসমর্পণ করতে যান। কিন্তু আদালতে মূল নথি না থাকায় ২৬ সেপ্টেম্বর আত্মসমর্পণের জন্য পরবর্তী দিন ধার্য করেন বিচারক। ওই দিন বিচারক মামলার নথি তলব করেন। রোববার (২৬ সেপ্টেম্বর) আত্মসমর্পণের সময় নেতাদের সঙ্গে আদালত চত্বরে বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য আবু সাঈদ চাঁদ, বোয়ালিয়া থানা সভাপতি সাইদুর রহমান পিন্টু, সাধারণ সম্পাদক রবিউল আলম মিলু, সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল হোসেন দিলদার, রাজপাড়া থানা সভাপতি শওকত আলী ও সাধারণ সম্পাদক আলী হোসেন, শাহ মখদুম থানার ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আবদুল মাসুদ, মাহনগর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ওয়ালিউল হক রানা, জেলা সদস্য মিজানুর রহমান মিজান, বিএনপি নেতা আনোয়ার হোসেন উজ্জল, মতিহার থানার সভাপতি আনসার আলীসহ অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। এর আগে গত ২ মার্চ রাজশাহীতে বিএনপির বিভাগীয় সমাবেশে প্রধানমন্ত্রীকে হুমকি দিয়ে বক্তব্য দেওয়ায় দলের জাতীয় নির্বাহী কমিটির রাজশাহী বিভাগীয় সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক উপমন্ত্রী রুহুল কুদ্দুস তালুকদার দুলুসহ তাদের বিরুদ্ধে রাজশাহী মহানগর আওয়ামী লীগের আইন বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মুসাব্বিরুল ইসলাম বাদী হয়ে জেলা ম্যাজিস্ট্রেট ও জেলা প্রশাসকের কাছে রাষ্ট্রদ্রোহ মামলার আবেদন করেন। পরে জেলা প্রশাসক মামলাটি অনুমোদনের জন্য স্বরাষ্ট্রমন্ত্রণালয়ে পাঠান। গত ১৬ মার্চ স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় থেকে মামলাটি অনুমোদন হয়ে আসে। এরপর ৩১ মার্চ রাষ্ট্রদ্রোহিতার মামলায় তাদের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন আদালত। মামলায় গত ২৬ আগস্ট উচ্চ আদালত থেকে চার সপ্তাহের আগাম জামিন পান আসামিরা।