October 2, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, December 2nd, 2021, 9:04 pm

রোববার থেকে শুরু হচ্ছে জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

আগামী রোববার শুরু হচ্ছে আট দিনব্যাপী ‘৯ম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা ২০২১’। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভার্চুয়ালি যুক্ত হয়ে এ মেলার উদ্বোধন ঘোষণা করবেন। বৃহস্পতিবার (২রা ডিসেম্বর) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে পর্যটন ভবনে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান শিল্পমন্ত্রী নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন। এ সময় শিল্প প্রতিমন্ত্রী কামাল আহমেদ মজুমদার, শিল্প সচিব জাকিয়া সুলতানাসহ সংশ্লিষ্টরা উপস্থিত ছিলেন। মন্ত্রী বলেন, এসএমই ফাউন্ডেশন আয়োজিত ‘৯ম জাতীয় এসএমই পণ্য মেলা ২০২১’ অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে রোববার। এদিন সকাল ১০টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত থেকে এর শুভ উদ্বোধন ঘোষণা করবেন। মেলা প্রসঙ্গে নূরুল মজিদ মাহমুদ হুমায়ূন বলেন, মেলা আয়োজনের উদ্দেশ্য ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তা কর্তৃক উৎপাদিত পণ্যের প্রচার, প্রসার, বিক্রয় এবং স্থানীয় ও আন্তর্জাতিক বাজার সম্প্রসারণ; এসএমই উদ্যোক্তাদের পারস্পরিক সম্পর্ক উন্নয়ন, যোগাযোগ এবং সেতুবন্ধন তৈরিতে সহায়তা; এসএমই উদ্যোক্তা ও ভোক্তাদের মাঝে পারস্পরিক সংযোগ স্থাপন এবং পণ্য উৎপাদন ও সেবা সৃষ্টির ক্ষেত্রে ভোক্তাসহ বিভিন্ন মহলের সৃজনশীল মতামত ও পরামর্শ গ্রহণ। মন্ত্রী বলেন, এবারের মেলায় সারাদেশ থেকে ৩১১টি এসএমই উদ্যোক্তা প্রতিষ্ঠান অংশ নেবে। তারা ৩২৫টি স্টলে নিজেদের উৎপাদিত পণ্য প্রদর্শন করবে। উদ্যোক্তাদের মধ্যে ৬০ শতাংশ নারী ও ৪০ শতাংশ পুরুষ উদ্যোক্তা রয়েছেন। মেলায় দেশে উৎপাদিত লাইট ইঞ্জিনিয়ারিং পণ্য, ইলেকট্রিক্যাল ও ইলেকট্রনিক্স সামগ্রী, প্লাস্টিক পণ্য, আইটি পণ্য, পাটজাত পণ্য, চামড়াজাত সামগ্রী, খাদ্য ও কৃষি প্রক্রিয়াজাত পণ্য, হারবাল/অর্গানিক পণ্য, হ্যান্ডিক্রাফট, ফ্যাশন ডিজাইন, জুয়েলারি আইটেমসহ বিভিন্ন ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্পের স্বদেশি পণ্য প্রদর্শিত ও বিক্রয় হবে। তিনি বলেন, বরাবরের মতোই এ মেলার বিশেষ আকর্ষণ হচ্ছে কোনো বিদেশি পণ্য এ মেলায় প্রদর্শন কিংবা বিক্রি করা হবে না। দেশীয় পণ্য প্রদর্শন ও বিক্রয়ের পাশাপাশি এ মেলায় ক্রেতা ও বিক্রেতা মিটিং বুথ, রক্তদান কর্মসূচি, মিডিয়া সেন্টারসহ অনলাইন পণ্য মার্কেটিং বিষয়ক স্টল থাকবে। এ ছাড়া সরকারি সংস্থা বিসিক, বিএসইসি, বিসিআইসি, বিটাক ও বিএসটিআইয়ের পাশাপাশি স্পন্সর ব্র্যাক, অগ্রণী ব্যাংক ও ইস্টার্ন ব্যাংকের স্টল থাকবে। তিনি আরও বলেন, মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বাংলাদেশের সামগ্রিক অর্থনৈতিক উন্নয়নে দেশের এসএমই উদ্যোক্তাদের অবদান ও অংশগ্রহণকে স্বীকৃতি প্রদানের লক্ষ্যে ‘জাতীয় এসএমই উদ্যোক্তা পুরস্কার ২০২১’ প্রদান হবে। এ ছাড়া আট দিনব্যাপী মেলার পাশাপাশি এসএমই উদ্যোক্তাদের সহজ অর্থায়ন, নারী উদ্যোক্তা উন্নয়ন, প্রযুক্তি উন্নয়ন, ক্লাস্টার উন্নয়নের ওপর চারটি সেমিনার আয়োজন করা হবে। মন্ত্রী বলেন, নানা বাস্তবতা বিবেচনা করে এসএমই ফাউন্ডেশন শুরু থেকেই ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প উদ্যোক্তাদের উৎপাদিত পণ্য বাজারজাতকরণে সহায়তা দিয়ে আসছে। বিশেষ করে মেলা আয়োজনসহ বিভিন্ন বাস্তবধর্মী কর্মসূচি পরিচালনা করে যাচ্ছে। গত আটটি জাতীয় এসএমই মেলায় এক হাজার ৫৬১ জন উদ্যোক্তা প্রায় ২১ কোটি ৮৮ লাখ টাকার পণ্য বিক্রি, ৩৬ কোটি ৫০ লাখ টাকার অর্ডার গ্রহণ এবং ৮৬টি আঞ্চলিক (বিভাগ ও জেলা পর্যায়ে) এসএমই পণ্য মেলায় তিন হাজার ১৬২ জন এসএমই উদ্যোক্তা পণ্য প্রদর্শন করে ২৩ কোটি ৩৩ লাখ টাকার পণ্য বিক্রয় এবং ২১ কোটি ১৪ লাখ টাকার অর্ডার গ্রহণ করেন।
আগামী বছর থেকে ঢেলে সাজানো হবে সব চিনিকল: শিল্পমন্ত্রী জানান, দেশের সব চিনিকল নতুন করে ঢেলে সাজানো হবে। তবে সবগুলোর কাজ একসঙ্গে শুরু করা যাবে না। আগামী বছর (২০২২সাল) থেকে পর্যায়ক্রমে এ কাজ করা হবে। চিনিকল প্রসঙ্গে মন্ত্রী আরও বলেন, প্রতিটি মিল নতুন করে সাজাবো। প্রয়োজনে থাইল্যান্ড ও ব্রাজিলের মতো দেশ থেকে দক্ষ টেকনিশিয়ান নিয়ে আসবো। পুরাতন চিনিকল চালিয়ে কোনো লাভ হয় না। লেবার খরচসহ অন্যান্য খরচ দিয়ে কিছু থাকে না। চিনিকল নিয়ে কিছু সংস্কার কাজও করতে হবে। আমার বিশ্বাস আগামী বছর থেকে বাস্তবায়ন কাজ শুরু করে দেবো। এখানে অনেক বিনিয়োগ করা হবে। চিনিকল লাভজনক করা হবে জানিয়ে শিল্পমন্ত্রী বলেন, দরকার হয় মোলাসিস বা চিটাগুড় বিদেশ থেকে এনে চিনিকল চালানো হবে। শুধু সুগার মিল চালিয়ে হবে না। চিনিকলকে লাভজনক করতে হলে অন্যান্য দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে। এই শিল্পকে টিকিয়ে রাখতে সব ধরনের উদ্যোগ শুরু হবে।