December 4, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, October 30th, 2022, 7:52 pm

লিওয়ানদোস্কির গোলে বার্সেলোনার জয়

অনলাইন ডেস্ক :

চ্যাম্পিয়ন্স লিগের বিদায়কে পিছনে ফেলে লা লিগায় জয়ের ধারা ধরে রেখেছে বার্সেলোনা। গত শনিবার রবার্ট লিওয়ানদোস্কির ৯৩ মিনিটের গোলে ভ্যালেন্সিয়াকে ১-০ গোলে পরাজিত করেছে কাতালান জায়ান্টরা। রাফিনহার ক্রসে পোলিশ ফরোয়ার্ড ম্যাচের একেবাওে শেষ মুহূর্তে গোল করে বার্সেলোনাকে তিন পয়েন্ট উপহার দেন। এই জয়ে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন রিয়াল মাদ্রিদের সাথে সমান ৩১ পয়েন্ট নিয়ে টেবিলের শীর্ষে রয়েছে জাভির দল। কঠিন লড়াইয়ের পর ভ্যালেন্সিয়ার এস্তাদিও দি মেস্তালায় বার্সেলোনার জয় নিশ্চিত হয়। যদিও ইনজুরির কারণে কাল দুই সেন্টার-ব্যাক জুলেস কুন্ডে ও এরিক গার্সিয়াকে কাল পুরো ম্যাচ খেলাতে পারেননি জাভি। বিশ্বকাপের তিন সপ্তাহ আগে এই দুই ডিফেন্ডার তাদের জাতীয় দল ফ্রান্স ও স্পেনের জন্যও দু:শ্চিন্তার বিষয় হয়ে দাঁড়িয়েছেন। অন্যদিকে গোঁড়ালির ইনজুরির কারণে ভ্যালেন্সিয়া দল থেকেও ছিটকে গেছেন উরুগুইয়ান অভিজ্ঞ ফরোয়ার্ড এডিনসন কাভানি। ম্যাচটিতে কাভানির সাথে ভালই লড়াই হয়েছে লিওয়ানদোস্কির। শেষ পর্যন্ত অবশ্য লেভা গোল করে বার্সেলোনাকে জয় উপহার দিয়েছেন। ম্যাচ শেষে জাভি বলেছেন, ‘এটা মোটেই দুর্দান্ত ফুটবল ছিলনা। এদিন আমরা ততটা উজ্জীবিত ছিলাম না। পুরো সপ্তাহের চাপটা মাঠে প্রকাশ পেয়েছে। ভ্যালেন্সিয়া নিজেদের দারুনভাবে প্রতিরোধ করেছে। এই তিন পয়েন্ট আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ। এই জয়ে আমি আমি দারুন খুশী, জয়টা আমাদের প্রাপ্য ছিল। প্রতিটি জয়ই আনন্দের। কোন দল যখন জয়ের পথে না থাকে তখনই এ্যালার্মের শব্দ শোনা যায়, এটাই স্বাভাবিক। আর বড় দলের জন্য এটা আরো বেশী প্রভাব ফেলে।’ ভ্যালেন্সিয়া কোচ জেনারো গাত্তুসো বলেছেন তিনি এবং বার্সা কোচ জাভি হার্নান্দেজ নিজেদের খেলোয়াড়ী জীবনে একেবারেই ভিন্ন ফুটবল খেলেছেন। কিন্তু তাদের দল মেস্তারায় প্রায় একই ধরনের লড়াইয়ে একে অপরের সাথে মোকাবেলা করেছে। এ ক্ষেত্রে সফরকারী বার্সেলোনা প্রথম থেকে কিছুটা হলেও এগিয়ে ছিল। যদিও ভ্যালেন্সিয়ার ফরোয়ার্ড লাইনে থাকা দুই স্ট্রাইকার স্যামুয়েল লিনো ও জাস্টিন ক্লুইভার্ট বার্সা রক্ষনভাগের জন্য বেশ সমস্যার কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছিল। পেড্রির নিখুঁত পাস থেকে আনুস ফাতি বার্সেলোনাকে প্রায় এগিয়ে দিয়েছিলেন। কিন্তু এ যাত্রা ভ্যালেন্সিয়ার গোলরক্ষক গিওর্গি মারমারডাশভিলি স্বাগতিকদের রক্ষা করেন। ফ্রেংকি ডি জংয়ের শট অল্পের জন্য পোস্টের বাইরে দিয়ে চলে যায়। ওসমানে ডেম্বেলের ক্রস থেকে ফাতির হেড সরাসরি মারমারডাশভিলির হাতে ধরা পড়ে। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতে লিনো গোল প্রায় করেই ফেলেছিলেন। কিন্তু গোলটি জালে জড়ানোর আগে বদলী খেলোয়াড় মার্কোস আন্দ্রের হাতে লাগলে হ্যান্ডবলের কারণে তা বাতিল হয়ে যায়। ম্যাচ শেষের পাঁচ মিনিট আগে গোলরক্ষক মারমারডশিভিলিকে একা পেয়েও কাজে সুযোগ কাজে লাগাতে পারেননি ফেরান তোরেস। তবে ইনজুরি টাইমের তৃতীয় মিনিটে লিওয়ানদোস্কি আর কোন ভুল করেননি। ম্যাচ শেষে গাত্তুসো বলেছেন, ‘বার্সেলোনার মত কোন দলের বিপক্ষে খেলতে নামলে ভুলের কোন সুযোগ নেই। পুরো ম্যাচে ইতিবাচক মানসিকতা ধরে রাখতে হবে। যদিও এই পরাজয়ে আমরা ভেঙ্গে পড়িনি, একে অপরের সাথে আলোচনা করে ভুলগুলো নিয়ে কাজ করার চেষ্টা করবো।’ ভ্যালেন্সিয়া তাদের শেষ ৬টি ম্যাচের মধ্যে মাত্র একটিতে জয়ী হয়েছে। বর্তমানে লিগ টেবিলে তাদের অবস্থান ১০ম। এদিকে দিনের শুরুতে রুবেন সোবিরনোর শেষ মুহূর্তের গোলে এ্যাথলেটিকো মাদ্রিদকে নাটকীয় শ্যাচে ৩-২ গোলে পরাজিত করে ঐতিহাসিক জয় তুলে নিয়েছে পুঁচকে দল কাডিজ। দুই গোলে পিছিয়ে থেকে বদলী বেঞ্চ থেকে উঠে আসা হুয়াও ফেলিক্সের জোড়া গোলে সমতায় ফিরেছিল সফরকারী এ্যাথলেটিকো। কিন্তু স্টপেজ টাইমে সোবিরনোর গোলে কাডিজের জয় নিশ্চিত হয়। বুধবার চ্যাম্পিয়ন্স লিগ থেকে বিদায়ের পর আরো একটি পরাজয় এ্যাথলেটিকোকে লা লিগায় আরো পিছিয়ে দিয়েছে। তৃতীয় স্থানে থাকা দিয়েগো সিমিনের শিষ্যরা এখন বার্সেলোনা ও রিয়াল মাদ্রিদের তুলনায় ৮ পয়েন্ট পিছিয়ে রয়েছে। ম্যাচ শেষে সিমিওনে বলেছেন, ‘এসবই শিক্ষার বিষয়। ফুটবলে সবসময়ই শেখার মধ্যে থাকতে হয়। আমাদের মানসিক ভাবে শক্ত থাকতে হবে। লা লিগায় এখনো অনেক পথ বাকি আছে। ইতোমধ্যেই আমরা ইউরোপা লিগে প্রবেশ করেছি। সে কারনেই অনেক চিন্তা ভাবনা করে সামনে এগুতে হবে।’ দিনের অপর ম্যাচগুলোতে ১৭তম স্থানে থাকা জর্জ সাম্পাওলির সেভিয়া ঘরের মাঠে রায়ো ভায়োকানোর কাছে ১-০ ও সেল্টা ভিগো ৩-১ গোলে আলমেরিয়ার কাছে পরাজিত হয়েছে।