August 13, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, July 12th, 2022, 8:04 pm

শোকার্ত জাপানিদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ায় আবের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা

অনলাইন ডেস্ক :

সাবেক প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানাতে টোকিওর সড়কগুলোতে লাইন ধরে দাঁড়িয়ে আছেন হাজার হাজার জাপানি। আবের মৃতদেহ বহন করা শবযান মঙ্গলবার এসব সড়ক দিয়েই রাজধানীর গুরুত্বপূর্ণ কিছু স্থান অতিক্রম করছে। বিবিসি জানিয়েছে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সবচেয়ে কম বয়সে জাপানের প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া আবের শেষকৃত্য হয়েছে জোজোই মন্দিরে। সেখানে কেবল পরিবারের সদস্য ও ঘনিষ্ঠ বন্ধুদেরই যাওয়ার অনুমতি ছিল। শুক্রবার জাপানের দক্ষিণের নারা শহরে একটি নির্বাচনী পথসভায় বক্তৃতা দিতে গিয়ে আততায়ীর গুলিতে নিহত হন আবে। তার স্মৃতির প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে টোকিওজুড়ে পতাকা অর্ধনমিত রাখা হয়েছে; জোজোই মন্দিরের বাইরে দেখা গেছে ফুল হাতে দাঁড়িয়ে থাকা শোকার্তদের দীর্ঘ সারি। এদের অনেকেই বিবিসিকে বলেছেন, আবে তাদেরকে সুরক্ষা ও নিরাপত্তার অনুভূতি দিয়েছিলেন। এক নারী বলেন, তিনি মনে করেন, কোভিডের শুরুর দিকে, যখন আবে প্রধানমন্ত্রী ছিলেন, তখন তিনিই করোনাভাইরাস কার্যকরভাবে মোকাবেলা করতে পেরেছিলেন। আবের শবযান এরইমধ্যে তার দল লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টির (এলডিপির) সদরদপ্তর পেরিয়ে যায় প্রধানমন্ত্রীর বাসভবনে, সেখানে ফুমিও কিশিদা ও অন্যান্য আইনপ্রণেতারা শবযানটিকে গ্রহণ করেন। এরপর যানটি পার্লামেন্ট ভবন অতিক্রম করে, যেখানে আবে প্রথম আইনপ্রণেতা হিসেবে প্রবেশ করেছিলেন ১৯৯৩ সালে। যানটি এখন শিনাগাওয়ার ফিউনারেল হলের পথে রয়েছে। আবে ছিলেন দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর জাপানের সবচেয়ে দীর্ঘসময় ধরে প্রধানমন্ত্রীর দায়িত্বে থাকা রাজনীতিক। মৃত্যুর আগ পর্যন্ত তিনি জাপানের অন্যতম প্রভাবশালী রাজনীতিক ছিলেন। যার গুলিতে তিনি নিহত হয়েছেন, সেই বন্দুকধারী একটি ধর্মীয় গোষ্ঠীর ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন। আবে ওই ধর্মীয় গোষ্ঠীর সঙ্গে যুক্ত ছিলেন বলে মনে হওয়াতেই তিনি তাকে (আবে) গুলি করেছেন বলে জানিয়েছে পুলিশ। দেশটিতে বন্দুক সহিংসতা বেশ বিরল হওয়ায় সাবেক প্রধানমন্ত্রীর ওপর এই ধরনের হামলার ঘটনা সমগ্র জাপানকে স্তব্ধ করে দেয়। তার স্মরণে সোমবার সন্ধ্যায় একটি আলোক প্রজ¦লন কর্মসূচি হয়েছে, যেখানে শত শত বিশিষ্ট ব্যক্তির পাশাপাশি হাজারও সাধারণ নাগরিক ফুল দিয়ে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর প্রতি তাদের শ্রদ্ধা নিবেদন করেছে। আবের মৃত্যু বিশ্বের অন্যান্য অঞ্চলের সরকার ও রাষ্ট্রপ্রধানদেরও নাড়িয়ে দিয়েছে। যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন তার ওপর গুলি চালানোর ঘটনাকে ‘ঘৃণ্য আক্রমণ’ অ্যাখ্যা দিয়েছেন; আর যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বলেছেন, আবে হত্যাকা- ‘জাপানের জন্য ট্র্যাজেডি’।