May 24, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Tuesday, May 14th, 2024, 10:07 pm

সবুজ জলবায়ু তহবিলের ব্যর্থতায় বাংলাদেশের মতো দেশগুলোকে বঞ্চিত: টিআইবি

ট্রান্সপারেন্সি ইন্টারন্যাশনাল বাংলাদেশ (টিআইবি) বলেছে, সবুজ জলবায়ু তহবিল বা গ্রিন ক্লাইমেট ফান্ড (জিসিএফ) তহবিল অনুদানের ক্ষেত্রে জলবায়ু-ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর চেয়ে আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোকে অগ্রাধিকার দিচ্ছে, যা এর মূল নীতির সঙ্গে সাংঘর্ষিক।

ফলে বাংলাদেশের মতো উন্নয়নশীল দেশগুলো প্রয়োজনীয় সহায়তা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে।

উন্নত দেশগুলো থেকে অপর্যাপ্ত তহবিল সংগ্রহ এবং জলবায়ুজনিত ঝুঁকিপূর্ণ দেশগুলোর ওপর অনুদানের পরিবর্তে ঋণ আরোপসহ গত ১২ বছরে দায়িত্ব পালনে জিসিএফ’র ব্যর্থতার বিষয়টি তুলে ধরে টিআইবি।

‘অ্যাকসসেসিং গ্রিন ক্লাইমেট ফান্ড (জিসিএফ) ফর ভালনারেবল কান্ট্রিজ অ্যাজ বাংলাদেশ: গভর্ন্যান্স চ্যালেঞ্জস অ্যান্ড ওয়ে ফরওয়ার্ড’ শীর্ষক গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করে টিআইবি।

২০২৩ সালের জানুয়ারি থেকে ২০২৪ সালের মে মাস পর্যন্ত পরিচালিত এই গবেষণায় গুণগত ও পরিমাণগত উভয় পদ্ধতিই ব্যবহার করা হয়েছে।

জিসিএফের কঠোর শর্তের সমালোচনা করে টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান বলেন, উন্নয়নশীল দেশগুলোর তহবিল পাওয়া প্রায় নিষিদ্ধ হয়ে পড়েছে।

তিনি জোর দেন যে জিসিএফ তার নিজের নীতিগুলো মেনে চলতে ব্যর্থতার ফলে তহবিল স্থানান্তরে উল্লেখযোগ্য বিলম্ব হয়েছে এবং উপযুক্ত প্রাপকদের জন্যও অনুদানের পরিমাণ অপর্যাপ্ত।

ইউএনডিপি, আইডিবি, এডিবি এবং ইবিআরডির মতো আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর প্রতি জিসিএফের পক্ষপাতমূলক আচরণকে অগ্রহণযোগ্য ও জিসিএফ মিশনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক বলে উল্লেখ করেন ড. ইফতেখারুজ্জামান।

তিনি অনুদানের চেয়ে ঋণের ক্ষেত্রে সমস্যাযুক্ত পরিবর্তনের কথাও তুলে ধরেন, যা বাংলাদেশের মতো দেশগুলোর ওপর অতিরিক্ত আর্থিক চাপের বোঝা চাপিয়ে দিচ্ছে। এরপরও, দুর্নীতির অভিযোগ সত্ত্বেও, ইউএনডিপির স্বীকৃতি নবায়ন করা হয়, দুর্নীতির বিষয়ে জিসিএফের শূন্য-সহনশীলতা নীতিকে ক্ষুণ্ন করে।

গবেষণায় উঠে এসেছে, জিসিএফ’র স্বীকৃতি প্রক্রিয়া অত্যন্ত জটিল ও সময়সাপেক্ষ, যা বাংলাদেশের মতো দুর্বল দেশগুলোকে সরাসরি তহবিল প্রাপ্তিতে বাধা দিচ্ছে। এটি অভিযোজনের উপর প্রশমনের উপর একটি অসামঞ্জস্যপূর্ণ গুরুত্ব খুঁজে পেয়েছে। জিসিএফ সুষম ৫০:৫০ তহবিল অনুপাত অর্জন করতে বা এই লক্ষ্যটির জন্য একটি সময়সীমা নির্ধারণ করতে ব্যর্থ হয়েছে। ২১৫ থেকে ৩৮৭ বিলিয়ন ডলারের প্রয়োজন থাকা সত্ত্বেও উন্নয়নশীল দেশগুলোতে অভিযোজনের জন্য মাত্র ৫৯০ কোটি ডলার দিয়েছে জিসিএফ।

গবেষণায় অনুদানের তুলনায় ঋণ বৃদ্ধির উদ্বেগজনক প্রবণতাও উল্লেখ করা হয়েছে। এটি দূষণকারী-বেতন-নীতির বিপরীতে যা উন্নত দেশগুলোকে অনুদান-ভিত্তিক জলবায়ু অর্থায়ন প্রদানের বাধ্যবাধকতা দেয়। বর্তমানে, ৪১ দশমিক ৬ শতাংশ অর্থায়নের ৪০ দশমিক ৬ শতাংশই জিসিএফের ঋণ। যা ইতোমধ্যে দেশগুলোর ওপর আর্থিক চাপ যোগ করছে।

বাংলাদেশে জিসিএফের জন্য জাতীয় মনোনীত কর্তৃপক্ষের (এনডিএ) নির্বাচন স্বচ্ছতা এবং স্পষ্ট নীতির অভাবের কারণে সমালোচিত হয়েছে। সরকারি সংস্থাগুলোর জন্য স্বীকৃতি প্রক্রিয়াটি উল্লেখযোগ্যহারে বিলম্ব দেখেছে। চারটি সংস্থা পাঁচ বছরের চেষ্টার পরেও স্বীকৃতি পায়নি। জিসিএফ সচিবালয়ের অপর্যাপ্ত সহায়তার কারণে একটি বাংলাদেশি প্রতিষ্ঠানকে অনুমোদনের জন্য দুই বছর অপেক্ষা করতে হয়েছে।

জিসিএফ প্রকল্পের অর্থায়ন বিশ্লেষণে উঠে এসেছে যে বাংলাদেশ তার জলবায়ু প্রয়োজনের জন্য অপর্যাপ্ত তহবিল পেয়েছে। ২০২৫ সালের মাঝামাঝি সময়ে প্রয়োজনীয় ১২ বিলিয়ন মার্কিন ডলারের মধ্যে মাত্র ১ দশমিক ১৮ বিলিয়ন মার্কিন ডলার (৯ দশমিক ৯ শতাংশ) বিভিন্ন উৎস থেকে অনুমোদিত হয়েছে। এছাড়াও জিসিএফ রেডিনেসসহ বাংলাদেশের জন্য মোট তহবিল অনুমোদন করেছে ৪৪৮ দশমিক ৮ মিলিয়ন ডলার, যা প্রয়োজনীয় মোট অর্থের ৩.৭%।

উপরন্তু, জিসিএফ বাংলাদেশে প্রশমন প্রকল্পের জন্য ২৫৬ দশমিক ৪ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (৭৬ দশমিক ৯ শতাংশ) এবং অভিযোজন প্রকল্পের জন্য ৭৬ দশমিক ৮ মিলিয়ন মার্কিন ডলার (২৩ দশমিক ১ শতাংশ) বরাদ্দ পেয়েছে। এর মধ্যে ৭৫ শতাংশ ঋণ এবং মাত্র ২৫ শতাংশ অনুদান। বাংলাদেশের ৯টি জিসিএফ প্রকল্পের জন্য মাত্র ১৩ দশমিক ৩ শতাংশ তহবিল ছাড় করা হয়েছে, যার মধ্যে একটি প্রকল্পের প্রথম কিস্তির অর্থ ৩ বছর পর ছাড় করা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন টিআইবির নির্বাহী পরিচালক ড. ইফতেখারুজ্জামান, উপদেষ্টা-নির্বাহী ব্যবস্থাপনা অধ্যাপক ড. সুমাইয়া খায়ের, গবেষণা ও পলিসি বিভাগের পরিচালক মুহাম্মদ বদিউজ্জামান ও সিনিয়র রিসার্চ ফেলো মো. টিআইবির আউটরিচ অ্যান্ড কমিউনিকেশন বিভাগের পরিচালক মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলামের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে গবেষণা উপস্থাপনা করেন জলবায়ু অর্থায়নে সুশাসন বিষয়ক রিসার্চ ফেলো নেওয়াজুল মওলা এবং রিসার্চ এসোসিয়েট মো. সহিদুল ইসলাম।

—-ইউএনবি