January 24, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, December 5th, 2021, 8:31 pm

সাপ তাড়াতে গিয়ে পুড়লো কোটি টাকার বাড়ি!

অনলাইন ডেস্ক :

বাড়িতে ঢুকে পড়েছিল বিষধর সাপ। আর সেই সাপ তাড়াতে গিয়ে আগুনে পুড়ে ছাই হয়েছে গোটা বাড়ি। যুক্তরাষ্ট্রের উপকূলবর্তী অঙ্গরাজ্য মেরিল্যান্ডে এই ঘটনা ঘটেছে। গত মঙ্গলবার অঙ্গরাজ্যটির ডিকারসন এলাকায় প্রায় ১০ হাজার বর্গফুটের একটি বাড়িতে এই আগুন লাগে। মন্টোগোমারি কাউন্টির ফায়ার অ্যান্ড রেসকিউ সার্ভিসের প্রধান মুখপাত্র পিট পিরিঞ্জার জানান, বাড়ির মালিক ধোঁয়া দিয়ে সাপের উপদ্রব কমানোর চেষ্টাকালে এই আগুনের সূত্রপাত হয়। মুখপাত্র পিরিঞ্জার জানান, বাড়িটির বর্তমান মালিকের জন্য সাপের উপদ্রব অনেক দিন থেকেই ছিল। আগের ভাড়াটেকেও একই সমস্যায় পড়তে হয়েছে। সরকারি তথ্য অনুসারে, সম্প্রতি এই বাড়িটি ১৮ লাখ মার্কিন ডলারে (প্রায় ১৫ কোটি ৪২ লাখ টাকা) কেনা হয়েছিল। আগুনে পুড়ে যাওয়ায় ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ ১০ লাখ ডলারের বেশি হতে পারে বলে জানান পিরিঞ্জার। আগুন লাগার কারণ ব্যাখ্যা করে এই কর্মকর্তা জানান, ধোঁয়া তৈরির জন্য কয়লা পুড়ানো হয়েছিল। কিন্তু এসব দাহ্য বস্তুর খুব কাছে রাখা হয়। যার পরিণতিতে বাড়িতে আগুন লাগে। স্থানীয় সংবাদমাধ্যমের বরাতে সিএনএন জানায়, বেজমেন্টে আগুনের সূত্রপাত্র হলেও দ্রুত তা বহুতল বাড়িতে ছড়িয়ে পড়ে। পিরিঞ্জার জানান, আগুন লাগার কয়েক ঘণ্টা আগে মালিক বাড়িতে ছিলেন। সৌভাগ্যবশত আগুন লাগার সময় সেখানে কেউ ছিলেন না। এক প্রতিবেশী ধোঁয়া দেখে ৯১১-তে ফোন করেন। স্থানীয় সময় রাত দশটা নাগাদ ৭৫ জন দমকলবাহিনীর সদস্য ঘটনাস্থলে হাজির হয়ে আগুন নেভানোর কাজ শুরু করেন। তিনি বলেন, ওই এলাকায় কোনও ফায়ার হাইড্র্যান্ট ছিল না। এটি কোনও সমস্যা না, কারণ এতে আমরা অভ্যস্ত। কিন্তু পানির ট্যাংকি আমাদের শাটল করে আনতে হয়েছে। এজন্য আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে কয়েক ঘণ্টা লেগে যায়। পরদিন সকাল হওয়ার আগে পুরোপুরি নেভানো যায়নি। সরকারি তথ্য অনুসারে, সম্প্রতি এই বাড়িটি ১৮ লাখ মার্কিন ডলারে (প্রায় ১৫ কোটি ৪২ লাখ টাকা) কেনা হয়েছিল। আগুনে পুড়ে যাওয়ায় ক্ষয়-ক্ষতির পরিমাণ ১০ লাখ ডলারের বেশি হতে পারে বলে জানান পিরিঞ্জার। আগুন লাগার সময় বাড়িতে কেউ না থাকায় কোনও আহতের খবর পাওয়া যায়নি। আর সাপের অবস্থাও অজ্ঞাত। তবে বাড়িটি ধ্বংসস্তূপে পরিণত হওয়ায় ধারণা করা হচ্ছে কোনও প্রাণীর সেখানে বাস করার সম্ভাবনা নাই।