December 4, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, October 31st, 2022, 4:04 pm

সিউল হ্যালোইন ট্রাজেডি: মৃতের সংখ্যা বেড়ে ১৫৩

এপি :

দক্ষিণ কোরিয়ার রাজধানীতে হ্যালোইন উৎসবে পদদলিত হয়ে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১৫৩ জনে দাঁড়িয়েছে। সিউলের নাইট লাইফ জেলায় এক সরু গলিতে ভিড়ের মধ্যে আটকা পড়ে এবং পদদলিত হয়ে এ দুর্ঘটনা ঘটে।

শনিবার (২৯ অক্টোবর) রাতে ইটাওয়ান এলাকার উতরাই গলিতে কি কারণে ভিড় হয়েছে তা অস্পষ্ট ছিল এবং কর্তৃপক্ষ একটি পুঙ্খানুপুঙ্খ তদন্তের প্রতিশ্রুতি দিয়েছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলছেন যে লোকেরা একে অপরের উপর “ডোমিনোদের মতো” পড়েছিল এবং কিছু আহত ব্যক্তিকে কার্ডিওপালমোনারি রিসাসিটেশন (সিপিআর) দেয়ার সময় তাদের নাক ও মুখ থেকে রক্তপাত হচ্ছিল।

একটি অলাভজনক সংস্থার কর্মকর্তা কিম মি সুং বলেছেন, তিনি ১০ জনের ওপর সিপিআর করেছেন যারা অচেতন ছিল। বেশিরভাগ মহিলারা জাদুকরী পোশাক এবং অন্যান্য হ্যালোইন পোশাক পরা। তাদের মধ্যে নয়জনকে ঘটনাস্থলেই মৃত ঘোষণা করা হয়।

কিম বলেন, ‘আমি এখনও বিশ্বাস করতে পারছি না যা ঘটেছে। এটা একটা নরকের মতো ছিল।’

কর্মকর্তারা বলেছেন, রবিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত ১৫৩ জন নিহত এবং ১৩৩ জন আহত হয়েছেন। নিহতদের প্রায় দুই-তৃতীয়াংশ ৯৭ জন নারী। মৃতদের মধ্যে ৮০ ভাগেরও বেশির বয়স ২০ এবং ৩০ এর মধ্যে এবং কমপক্ষে চারজন কিশোর ছিল।

অভ্যন্তরীণ ও নিরাপত্তা মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, আহতদের মধ্যে ৩৭ জনের অবস্থা গুরুতর হওয়ায় মৃতের সংখ্যা আরও বাড়তে পারে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছেন, অনেক লোক তাদের থেকে কয়েক ধাপ দূরে যারা বিপর্যয়টি হয়েছিল তা বুঝতে পারেনি। অন্যরা মাটিতে পড়ে থাকাবস্থায় হ্যালোউইনের পোশাক পরা কিছু লোক কাছাকাছি গান গাইতে থাকে এবং নাচতে থাকে।

নিহতদের মধ্যে অন্তত ২০ জন চীন, রাশিয়া, ইরান এবং অন্যান্য স্থানের বিদেশি নাগরিক। স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানিয়েছে, নিহতদের মধ্যে একজন আমেরিকানও রয়েছে।

কর্তৃপক্ষ বলেছে, হাজার হাজার মানুষ কাছাকাছি একটি শহরের অফিসে ফোন করেছে বা পরিদর্শন করেছে। নিখোঁজ আত্মীয়দের বিষয়ে অবগত করেছে এবং কর্মকর্তাদের নিশ্চিত করতে বলছে যে তারা পিষ্ট হওয়ার পরে আহত বা মৃতদের মধ্যে ছিল কিনা।

মহামারি শুরু হওয়ার পর থেকে আনুমানিক এক লাখ লোক দেশের বৃহত্তম আউটডোর হ্যালোইন উৎসবের জন্য ইটাউনে জড়ো হয়েছিল। দক্ষিণ কোরিয়ার সরকার সাম্প্রতিক মাসগুলোতে কোভিড-১৯ বিধিনিষেধ শিথিল করেছে।

যদিও হ্যালোইন দক্ষিণ কোরিয়ায় একটি ঐতিহ্যবাহী ছুটির দিন নয়, যেখানে শিশুরা কদাচিৎ কৌশল-অথবা-কসরত করে, এটি এখনও তরুণ প্রাপ্তবয়স্কদের জন্য একটি প্রধান আকর্ষণ এবং বার এবং ক্লাবগুলোতে পোশাক পার্টি সাম্প্রতিক বছরগুলোতে অত্যন্ত জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেছেন, রাস্তাগুলোতে মানুষ এবং ধীর গতিতে চলা যানবাহনে এতো বেশি ছিল যে জরুরি কর্মীদের এবং অ্যাম্বুলেন্সগুলোর পক্ষে সিউলের প্রধান পার্টি স্পট হ্যামিল্টন হোটেলের কাছের গলিতে দ্রুত পৌঁছানো কার্যত অসম্ভব ছিল।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ইউন সুক ইওল রবিবার এক সপ্তাহের জাতীয় শোক ঘোষণা করেছেন। এবং সরকারি ভবন ও সরকারি অফিসে পতাকা অর্ধনমিত অবস্থায় উড়ানোর নির্দেশ দিয়েছেন। হ্যামিল্টন হোটেল এলাকার প্রায় ১০০টি ব্যবসায়িক প্রতিষ্ঠান সোমবার পর্যন্ত তাদের দোকানপাট বন্ধ রাখতে সম্মত হয়েছে যাতে হ্যালোইন দিবসে রাস্তায় আসা পার্টিগামীদের সংখ্যা কমিয়ে আনা যায়।

টেলিভিশন বক্তৃতায় ইউন বলেন, নিহতদের পরিবারকে তাদের অন্ত্যেষ্টিক্রিয়ার প্রস্তুতিসহ সহায়তা করা এবং আহতদের চিকিৎসায় সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দেবে তার সরকার।

তিনি দুর্ঘটনার কারণ পুঙ্খানুপুঙ্খভাবে তদন্ত এবং অন্যান্য বৃহৎ সাংস্কৃতিক ও বিনোদন অনুষ্ঠানের নিরাপত্তা পর্যালোচনা করার জন্য কর্মকর্তাদের আহ্বান জানান।

বক্তব্য শেষে ইউন সেই গলিটি পরিদর্শন করেন যেখানে বিপর্যয় ঘটেছে। স্থানীয় টিভি ফুটেজে ইউনকে ময়লা-আবর্জনা ভর্তি গলিটি পরিদর্শন করতে দেখা গেছে এবং জরুরি কর্মকর্তারা তাকে ব্রিফ করছেন।

দেশটির স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, নিহত ২০ জন বিদেশির মধ্যে চারজন চীনের, রাশিয়র তিনজন, ইরানের দুইজন, এবং ভিয়েতনাম, অস্ট্রিয়া, নরওয়ে, উজবেকিস্তান, কাজাখস্তান, শ্রীলঙ্কা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে একজন করে। এতে আরও বলা হয় অন্য চার বিদেশির জাতীয়তা নিশ্চিত করা হয়নি।