August 18, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Thursday, June 30th, 2022, 7:38 pm

সিলেটের ডিআইজির উদ্যোগে কুলাউড়া-জুড়ী ও বড়লেখায় ত্রাণ বিতরণ

এম. মছব্বির আলী, মৌলভীবাজার :

মৌলভীবাজারের কুলাউড়া, জুড়ী ও বড়লেখা উপজেলায় ভয়াবহ বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ, পানিবন্দি ও সুবিধাবঞ্চিত মানুষের মাঝে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছেন সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ (পিপিএম)। বুধবার দুপুরে কুলাউড়া পৌর শহরের রাবেয়া আদর্শ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আশ্রয় কেন্দ্রের সামনে প্রায় তিন শতাধিক মানুষের মাঝে এ খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেন তিনি।

এসময় উপস্থিত ছিলেন মৌলভীবাজারের পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জাকারিয়া, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (প্রশাসন ও অর্থ) নাছের আহমদ রিকাবদার, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (ডিএসবি) এবিএম মোজাহিদুল ইসলাম, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (কুলাউড়া সার্কেল) সাদেক কাওসার দস্তগীর, ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুস ছালেক, জুড়ী থানার ওসি সঞ্জয় চক্রবর্তী, বড়লেখা থানার ওসি জাহাঙ্গীর হোসেন, কুলাউড়া থানার ওসি (তদন্ত) মো: আমিনুল ইসলামসহ থানা পুলিশের সদস্যরা।

এক হাজার টাকা মূল্যের খাদ্য সামগ্রীর প্যাকেটের মধ্যে রয়েছে, চাল, ডাল, আলু, তেল, পেয়াজ, চিনি, দুধ, বিস্কুট, চিড়া, মোমবাতি, দিয়াশলাই। খাদ্য সামগ্রীর প্যাকেট হাতে পেয়ে নূরজাহান বেগম (৭০) নামে এক বৃদ্ধা পুলিশকে ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, পরিবারে ছোট্ট নাতি-নাতনীদের নিয়ে এখন কয়েকটি দিন ভালোভাবে খেতে পারবো। এই বন্যায় আমরা কখনো অনাহারে কখনো অর্ধাহারে কাটিয়েছি। উপজেলা প্রশাসনের পর এবার পুলিশের পক্ষ থেকেও খাবার পেলাম।

খাদ্য সামগ্রী বিতরণ শেষে সিলেট রেঞ্জের ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ পিপিএম গণমাধ্যমকর্মীদের বলেন, বাংলাদেশ পুলিশ সবসময় মানুষের পাশে আছে। বন্যার শুরু থেকে দুর্গত এলাকার মানুষের পাশে পুলিশ অতন্দ্র প্রহরীর মতো কাজ করছে। দুঃসময় কাটিয়ে না ওঠা পর্যন্ত পুলিশ পানিবন্দি অসহায় মানুষদের পাশে থাকবে। এরই ধারাবাহিকতায় জেলা পুলিশের পক্ষ থেকে আমরা কুলাউড়া, জুড়ী ও বড়লেখায় ৬৫০ প্যাকেট খাদ্য সামগ্রী নিয়ে এসেছি, বানভাসি মানুষের পাশে দাঁড়িয়েছি। শুধু আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় নয়, দেশের সকল দুর্যোগে দূর্গত মানুষের খোঁজখবর নেয়ার পাশাপাশি তাদের সাহায্যর্থে এগিয়ে আসে বাংলাদেশ পুলিশ। এই বন্যায়ও বানবাসী মানুষের পাশে আমরা আছি। ভবিষ্যতেও সিলেট রেঞ্জ পুলিশের পক্ষ থেকে আমাদের সহযোগিতা সবসময় অব্যাহত থাকবে।