May 20, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, April 22nd, 2024, 7:39 pm

সুপার লিগে আবাহনীর দারুণ শুরু

অনলাইন ডেস্ক :

গ্রুপ পর্বের সবগুলো ম্যাচ জিতে পয়েন্ট টেবিলের শীর্ষে থেকেই সুপার লিগে উঠেছে আবাহনী। সোমবার সুপার লিগে নিজেদের প্রথম ম্যাচে প্রাইম ব্যাংকের বিপক্ষে দারুণ এক জয়ে চলতি মৌসুমের শিরোপা অনেকটাই নিশ্চিত করে ফেলেছে নাজমুল হোসেন শান্ত-লিটন দাসদের নিয়ে গড়া দলটি। আগে ব্যাট করে তামিম-মুশফিকদের প্রাইম ব্যাংক করেছে ১৭৮ রান। জবাবে ৫ উইকেট হারিয়ে ৩৮.৩ ওভারে জয়ের বন্দরে পৌঁছে যায় আবাহনী। মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে টস হেরে আগে ব্যাটিং করতে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে প্রাইম ব্যাংক। শরিফুল-তাসকিনদের গতির কাছে পরাস্ত হয়ে আবাহনীকে ১৭৯ রানের লক্ষ্য দিতে পারে তামিমরা। সহজ এই লক্ষ্যে খেলতে নেমে আবাহনী ৫ উইকেট হারালেও জয় পেতে সমস্যা হয়নি।

এদিন আবাহনীর হয়ে নিয়মিত খেলা নাঈম শেখকে বিশ্রাম দিয়ে লিটন দাসকে খেলানো হয়। বিশ্রাম থেকে ফিরেই লিটন দলের জয়ে বড় ভূমিকা রেখেছেন। সাদা বলের ক্রিকেটে সাম্প্রতিক সময়ে রান খরায় ভুগছিলেন তিনি। এই কারণে লঙ্কানদের বিপক্ষে জাতীয় দল থেকে বাদও পড়েছিলেন। প্রিমিয়ার লিগের একটি ম্যাচ খেলে সেখানেও হয়েছিলেন ব্যর্থ। এরপর টেস্ট সিরিজে রান না পাওয়াতে প্রিমিয়ার লিগ থেকে কিছুদিনের ছুটি নিয়েছিলেন এই উইকেট কিপার ব্যাটার। তবে ছুটি কাটিয়ে সোমবার আবাহনীর জার্সিতে মাঠে নেমেই পেয়েছেন সাফল্য। দলীয় ৩৫ রানে ওপেনার এনামুল হক বিজয় আউট হয়েছেন। এরপর শান্ত ও আফিফের কেউই ইনিংস বড় করতে পারেননি।

চতুর্থ উইকেটে তাওহীদ হৃদয় ও লিটন মিলে গড়েন ৬২ রানের জুটি। তাওহীদ ২৭ বলে চার ও ৫ ছক্কায় ৫৫ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলে বিদায় নিয়েছেন। পরে জাকির আলী অনিক ২ রানে আউট হলেও লিটন দলকে জিতিয়ে মাঠ ছেড়েছেন। যদিও কিছুটা স্লো ব্যাটিং করেছেন এই ব্যাটার। ১০৬ বলে ৭ চারে ৫৫ রানের ইনিংস খেলেছেন তিনি। প্রাইম ব্যাংকের বোলারদের মধ্যে সানজামুল ইসলাম ও শেখ মেহেদী হাসান দুটি করে উইকেট নিয়েছেন। নাজমুল অপু নেন একটি উইকেট। শুরুতে টস হেরে ব্যাটিংয়ে নেমে শরিফুল ইসলাম ও তাসকিন আহমেদের গতির কাছে খেই হারায় প্রাইম ব্যাংকের টপ অর্ডার। ৫ রানে টপ অর্ডারের তিন ব্যাটারকে হারায় তারা।

তামিম ইকবাল (১), পারভেজ হোসেন ঈমন (০) ও শাহাদাত হোসেন দিপু (৪) রানে আউট হলে চাপে পড়ে যায় দলটি। যদিও চতুর্থ উইকেট মুশফিক ও জাকির হাসান মিলে চাপ সামাল দেওয়ার চেষ্টা করেছেন। মুশফিক ৪৪ রানে আউট হতেই ১১২ রানের জুটি ভাঙে তাদের। স্কোরবোর্ডে আরও ১২ রান যোগ করে অধিনায়ক জাকিরও আউট হন। তার আগে ৭০ বলে ৮ চার ও ১ ছক্কায় খেলেছেন ৬৮ রানের ইনিংস। জাকিরের আউটের পর কেউ প্রতিরোধ গড়তে পারেনি। তাতেই ৩৯.৩ ওভারে ১৭৮ রানে প্রাইম ব্যাংকের ইনিংস থামে। আবাহনীর জয়ের নায়ক শরিফুল ২৭ রান খরচায় নেন তিনটি উইকেট। তাসকিন আহমেদ, মোসাদ্দেক হোসেন ও তানভীর আহমেদ প্রত্যেকে দুটি করে উইকেট নিয়েছেন। এ ছাড়া সাইফউদ্দিন নেন একটি উইকেট।