November 27, 2021

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, June 20th, 2021, 2:13 pm

সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানায় করোনাকালেও ৪শ কোচ মেরামত

জেলা প্রতিনিধি :

সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা তৎকালীন ব্রিটিশ সরকারের আমলে প্রতিষ্ঠিত হয়। বর্তমানে এ কারখানায় চলছে শ্রমিক সঙ্কট। কারখানায় ২ হাজার ৮শ ৩৩ জন শ্রমিকের পদ থাকলেও কাজ করছে ৭শ ৮০ জন। কাজের প্রয়োজনে দৈনিক ৫শ টাকা মজুরী চুক্তিতে যোগ হয়েছে ১শ ৭০ জন দক্ষ অদক্ষ শ্রমিক। উল্লেখ্য চলমান অবসর ও গোল্ডেন হ্যান্ড শেকের মাধ্যমে ওই সময়ে অনেকটা বাধ্যতামুলক কারখানার দক্ষ শ্রমিকদের অবসরে দেয়া হয়। সে সময় থেকে কারখানায় দেখা দেয় শ্রমিক সংকট। মধ্যখানে কিছু লোক নিয়োগ দেয়া হলেও তা প্রয়োজনের তুলনায় কম। দ্রুত সময়ে এ কারখানায় শ্রমিক নিয়োগ দেয়া না হলে শ্রমিক সংকটে পড়ে কারখানার কাজ বন্ধ হয়ে যেতে পারে বলে অনেকে জানান।
এ ব্যাপারে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষ জানান, ২০১৮ সালের জনবল কাঠামো অনুযায়ী দ্রুত সময়ের মধ্যে নিয়োগ কার্যক্রম সম্পন্ন করা হবে।
স্বাভাবিক থাকাকালে এ কারখানায় কাজ চলছিল সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৫টা পর্যন্ত। কিন্তু করোনাকালীন সময়ে কাজ চলছে সকাল ৭টা থেকে দুপুর ১টা পর্যন্ত। দেশের বৃহত্তম এ রেলওয়ে কারখানায় নেই কোন গ্যাসের সংযোগ। বাধ্য হয়ে সিলিন্ডারের গ্যাস দিয়ে চলছে জরুরি মেরামতের কাজ। চলতি বছর মে মাস পর্যন্ত কারখানায় ৩শ ৮০টি কোচ হস্তান্তর করা হয়েছে। চলতি মাসে আরও ২৪টি কোচ হস্তান্তরের প্রক্রিয়া চলছে।
১৮৭০ সালে ব্রিটিশ সরকারের আমলে ১শ ১০ একর জমির ওপর নির্মাণ করা হয় সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা। বাংলাদেশের ৬টি রেলওয়ে কারখানার মধ্যে সৈয়দপুর রেলওয়ে কারখানা দেশের সবচেয়ে বড়। মিটার গেজ, ব্রড গেজ ট্রেনের মেরামত করা হয় এ কারখানায়। এখানে ব্রড গেজ ইঞ্জিন ও বগি নির্মাণ শুরু করা হয় ১৯৫৩ সালে। মেরামত ও নির্মাণকাজের জন্য এ কারখানায় ২০ থেকে ৫০ বছর বয়সী প্ল্যান্ট আছে ৭শ ২৫টি। ইঞ্জিন, বগি, চাকা ওয়াগনসহ ৯শ ৯৩ ধরনের কাজ করা হয় এ কারখানায়।
চলমান মহামারিতে সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে কাজ করছে শ্রমিকরা। লকডাউনে দেশের বিভিন্ন সরকারি প্রতিষ্ঠান বন্ধ থাকলেও এ কারখানায় কাজ চলেছে পুরোদমে। কারখানার শ্রমিকরা সপ্তাহে একদিন (শুক্রবার) ছুটি কাটান।
এ ব্যাপারে শ্রমিকরা জানান, দ্রত সময়ে জনবল নিয়োগ দিলে এ কারখানায় দ্বিগুণ কোচ মেরামত করা সম্ভব।