June 23, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Sunday, April 28th, 2024, 9:46 pm

স্মার্ট সুদহার ও মুদ্রাস্ফীতির প্রতিযোগিতায় বিপাকে ব্যবসায়ীরা

নিজস্ব প্রতিবেদক:

বাংলাদেশ ব্যাংক মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণ এবং মহামারি পতন এবং ভূ-রাজনৈতিক পরিস্থিতির কারণে বিপর্যস্ত অর্থনীতিকে চাঙ্গা করতে গত বছর স্মার্ট রেট, ট্রেজারি বিলের ছয় মাসের মুভিং এভারেজ রেট দিয়ে ব্যাংকগুলির চূড়ান্ত ঋণের হার নির্ধারণ করা শুরু করে। স্মার্ট রেট বাস্তবায়ন চালু করার পর, ঋণের সুদের হার ক্রমাগতভাবে বেড়েছে, ব্যবসায়ীদের মতে, উচ্চ মূল্যস্ফীতি ও বিনিময় হারের কারণে বাংলাদেশের ব্যবসায়ীরা চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি হতে হচ্ছে। এই সমস্ত উন্নয়নের মধ্যে, দেশের মোট দেশজ উৎপাদনে (জিডিপি) প্রবৃদ্ধি ২০২৪ অর্থবছরে দ্বিতীয় ত্রৈমাসিকে ৩.৭৮%-এ নেমে এসেছে যা এই অর্থবছরের প্রথম তিন মাসে ৬.০১% ছিল।

বিভিন্ন দেশ মুদ্রাস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে ব্যাংক সুদের হার বাড়ানোর ফর্মুলা বেছে নিয়েছে, যা তাদের জন্য ভালো ফল দিয়েছে। বাংলাদেশ গত বছরের জুলাইয়ে একটি মুদ্রানীতির মাধ্যমে এটি করার সিদ্ধান্ত নিলেও ওই বছরের অক্টোবরে তা কার্যকর হয়। ফলশ্রুতিতে, অনেক ব্যবসায়ী নতুন হারকে অত্যধিক বলে মনে করেন, ভবিষ্যতের সুদের হার সম্পর্কে অনিশ্চিত বোধ করেন এবং নতুন উদ্যোগ নেওয়ার ব্যাপারে সতর্ক হন।

অন্যদিকে ব্যাংকগুলোর অব্যবস্থাপনা ও অনিয়মের কারণে সুদের হার স্বাভাবিকের চেয়ে বেশি মাত্রায় বাড়ানো হচ্ছে। এতে দেশের সামগ্রিক উৎপাদনে নেতিবাচক প্রভাব পড়ছে, যা জিডিপিতে প্রভাব ফেলছে বলে জানিয়েছেন ব্যবসায়ীরা। ঢাকা চেম্বার অব কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রির (ডিসিসিআই) সভাপতি আশরাফ আহমেদ বলেন, আমানতের হার ৬% থেকে ৭% এবং ঋণের সুদের হার ১২% থেকে ১৩% হলে এখানে পার্থক্য ৬%। এটি ব্যাংকিং সেক্টরের অদক্ষতার কারণে হয়েছে। এ ধরনের ব্যয় কমাতে হবে।

ডিসিসিআই-এর সাবেক সভাপতি রিজওয়ান রহমান বলেন, মূল্যস্ফীতির কারণে ইতোমধ্যে কাঁচামালের দাম বেড়েছে। ব্যবসা করার খরচ এবং শ্রম খরচও লাফিয়ে উঠেছে। ব্যাংক ঋণের ক্রমবর্ধমান সুদের হার এই পরিস্থিতিতে ব্যবসাকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলছে। আমরা ব্যবসা শুরু করার সময় ৮% থেকে ৯% সুদে ঋণ নিয়েছিলাম, কিন্তু এখন আমাকে সেই ঋণের ১৪% থেকে ১৫% সুদ দিতে হবে। বাড়তি টাকা কোথায় পাব? বলেন রিজওয়ান। এ ছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে ব্যাংক একীভূতকরণের ঘোষণা ঋণ পেতে নতুন সমস্যা সৃষ্টি করেছে। কোন ব্যাংকের সাথে একীভূতকরণ কখন হবে তা কেউ আগে থেকে জানতে পারে না। ফলে ব্যবসায়ীদের মধ্যে আতঙ্ক দেখা দিয়েছে। সবাই নতুন ঋণ নেওয়ার চেয়ে পুরোনো ঋণ পরিশোধে ব্যস্ত, বলেন ডিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি।

পোশাক খাতের উদ্যোক্তা জাহাঙ্গীর আলম বলেন, ব্যবসায়ীদের ঋণ পরিশোধের সক্ষমতা কমে যাচ্ছে। কিস্তি পরিশোধে বিলম্বের জন্য, ২% বা তার বেশি জরিমানা দিতে হবে। ৯% সুদে ঋণ নেওয়ার পর, আমরা ১৩% এর বেশি সুদ দিচ্ছি। কেন এটা দিতে হবে? এতে আমাদের উৎপাদন ব্যাহত হচ্ছে। নতুন জনবল নিয়োগ করা এখন কঠিন হয়ে পড়েছে। বিশ্বব্যাংকের ঢাকা অফিসের সাবেক প্রধান অর্থনীতিবিদ ডাঃ জাহিদ হোসেন বলেন, বাংলাদেশ ব্যাংক মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে স্মার্ট রেট বাস্তবায়ন করেছে। এই মুহূর্তে এর কোনো বিকল্প নেই। তবে স্মার্ট রেট বাস্তবায়নের পরও মূল্যস্ফীতি নিয়ন্ত্রণে আনা যাচ্ছে না।

সুদের হার লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে

বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি বছরের এপ্রিলে ব্যাংকিং খাতে ঋণের হার ১৩ দশমিক ৫৫ শতাংশ ছাড়িয়েছে। মার্চে এটি ছিল ১৩.১১%, ফেব্রুয়ারিতে ১২.৪৩%, জানুয়ারিতে ১১.৮৯%, ডিসেম্বরে ১১.৪৭% এবং নভেম্বরে ১০.৯৩%। ২০২০ সালের এপ্রিলে, বাংলাদেশ ব্যাংক ব্যাংক ঋণের সর্বোচ্চ সুদের হার ৯% নির্ধারণ করে। যখন মহামারি এবং বিভিন্ন দেশে যুদ্ধের সূত্রপাতের কারণে দেশের অর্থনীতি সংকটের সম্মুখীন হয়, তখন কেন্দ্রীয় ব্যাংক নতুন স্মার্ট রেট প্রবর্তন করে। প্রতি মাসের শেষে বা মাসের প্রথম দিনে, বাংলাদেশ ব্যাংক বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলিকে স্মার্ট সুদের হার জানিয়ে দেয়, যা পরবর্তী মাসে বিতরণ করা নতুন ঋণের জন্য প্রযোজ্য হয়।

অর্থাৎ ডিসেম্বরে ঘোষিত স্মার্ট সুদ জানুয়ারি মাসের জন্য প্রযোজ্য হবে। প্রতি মাসে গ্রাহক পর্যায়ে সুদের হার পরিবর্তন করা যাবে না। টাকা ধার করার সময় প্রচলিত সুদের হার একজন গ্রাহক যে মাস থেকে লোন নিয়েছেন তার ছয় মাসের জন্য কার্যকর হবে। বাংলাদেশ ব্যাংকের তথ্য অনুযায়ী, চলতি অর্থবছরের প্রথম দুই মাসে- ২০২৩ সালের জুলাই ও আগস্ট- ঋণের সুদের হার ছিল যথাক্রমে ৭.১০% এবং ৭.১৪%। তারপর, সেই বছরের সেপ্টেম্বর এবং অক্টোবরে, হার যথাক্রমে ৭.২০% এবং ৭.৪৩% বৃদ্ধি করা হয়েছিল। নভেম্বর এবং ডিসেম্বর ২০২৩ এ, এটি যথাক্রমে ৭.৭২% এবং ৮.১৪%-এ উন্নীত হয়েছিল। জানুয়ারি ২০২৪ এর শেষে বেঞ্চমার্ক সুদের হার ছিল ৮.৬৮%।

এই বছরের ফেব্রুয়ারিতে তা ছিল ৯.৬১% এবং মার্চে তা লাফিয়ে ১০.৫৫% হয়েছে। ব্যাংকগুলিকে তাদের ঋণের সুদ নির্ধারণের জন্য স্মার্ট হারে ৩% যোগ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছে। পূর্বে, ব্যাংকগুলিকে বেঞ্চমার্ক হারে ৩.৫০% যোগ করার অনুমতি দেওয়া হয়েছিল। চলতি অর্থবছরে বাংলাদেশের জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬.১ শতাংশে নেমে আসতে পারে বলে পূর্বাভাস দিয়েছে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। তবে আগামী অর্থবছরে তা বেড়ে ৬.৬% হতে পারে বলে গত বৃহস্পতিবার প্রকাশিত এডিবির এশিয়ান ডেভেলপমেন্ট আউটলুক (এডিও) এপ্রিল ২০২৪ রিপোর্টে বলা হয়েছে।