July 16, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Monday, May 8th, 2023, 7:57 pm

হিলিতে বেড়েছে দেশি পেঁয়াজের দাম

দিনাজপুরের হিলি স্থলবন্দর দিয়ে প্রায় দুই মাস ধরে বন্ধ রয়েছে ভারত থেকে পেঁয়াজের আমদানি। ফলে আমদানি করা পেঁয়াজের শুন্যতায় হু-হু করে বাড়ছে দেশি পেঁয়াজের দাম।

ঈদের পর থেকে কয়েকদফা দাম বেড়ে বর্তমানে বিক্রি হচ্ছে ৫৫-৬০ টাকা। এতে নাভিশ্বাস উঠেছে ক্রেতাদের।

এছাড়া দাম বেড়ে কোথায় গিয়ে ঠেকবে এই দুশ্চিন্তায় ব্যবসায়ী ও ক্রেতারা।

বন্দরের আমদানিকারকেরা জানিয়েছেন, মঙ্গলবার (৯ মে) বিদেশ সফর শেষে প্রধানমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রীর দেশে ফেরার কথা রয়েছে। এরপর ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির বিষয়ে সিদ্ধান্ত হতে পারে।

আবার জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তর থেকেও মিলেছে সুখবর।

এদিকে বন্দরের মোকামের গুদামে গিয়ে দেখা যায়, ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ থাকায় কোনো কোনো গুদামে তালা ঝুলছে, আবার কোনটা খুলে অলস সময় পার করছেন কেউ। এছাড়া ভাড়া করা গুদাম নিয়ে বিপাকে পড়েছেন অনেকে।

সোমবার সকালে বাংলাহিলি বাজারে গিয়ে দেখা গেছে, দেশি পেঁয়াজ প্রকারভেদে খুচরা ৫৫-৬০ টাকা কেজিতে বিক্রি হচ্ছে। শনিবারও একই পেঁয়াজ ৫০-৫২ টাকায় বিক্রি হয়েছে। দেশি ছাড়া ভিনদেশি কোনো পেঁয়াজ পাওয়া যায়নি। তবে প্রতিদিনই দাম বাড়ছে।

বাজারের খুচরা ব্যবসায়ী মঈনুল হোসেন জানান, এখানে দেশি পেঁয়াজের কোনো মোকাম নাই। আমরা দক্ষিণাঞ্চল থেকে দেশি পেঁয়াজ কিনে আনি। বর্তমানে ভারতের পেঁয়াজের আমদানি বন্ধ রয়েছে।

তিনি আরও জানান, ঈদের আগে ৩০-৩৫ টাকায় বেচা-কেনা হয়েছে। এখন কেজিতে অন্তত ২০-২৫ টাকা বেড়ে বিক্রি হচ্ছে ৫৫-৬০ টাকায়। আমরা ৫০-৫২ টাকা পাইকারী দরে কিনছি।

আরেক খুচরা ব্যবসায়ী শাকিল জানান, ভারত থেকে পেঁয়াজ আসার খবর শুনলেই ব্যবসায়ীরা কেজিতে ৮-১০ টাকা কমে দেয়। যখন দেখে আসছে না তখন আবার আগের চেয়ে বেশি দামে বিক্রি করে। পেঁয়াজের বাজারে অস্থিরতা শুরু হয়েছে। ভারতীয় পেঁয়াজ না আসলে দাম আরও বাড়বে।

ক্রেতা শফিকুল জানান, সকালে আসলে একদাম। বিকালে আসলে আরেক দাম। যেভাবে দাম বাড়ছে তাতে আমাদের মত মানুষদের এর থেকে রেহাই পাওয়ার কোনো সুযোগ নাই। যে যার মতো দাম বাড়িয়ে বিক্রি করছে। পেঁয়াজের সঙ্গে অন্যান্য জিনিসপত্রেরও একই অবস্থা।

বন্দরের আমদানিকারক ও উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, সরকার দেশের কৃষকদের উৎপাদিত পেঁয়াজের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে গত ১৫ মার্চ পর্যন্ত ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানিতে অনুমতি দিয়েছিল।

এরপর ১৬ মার্চ থেকে দেশে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হয়ে যায়। ওই সময় দেশে পেঁয়াজের ভরা মৌসুম শুরু হয়। এ কারণে সরকার এমন সিদ্ধান্ত নেয়।

পেঁয়াজ আমদানিকারক ও হিলি স্থলবন্দর আমদানি-রপ্তানিকারক গ্রুপের সিনিয়র সহ-সভাপতি মো. শহীদুল ইসলাম বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও কৃষিমন্ত্রী বিদেশ সফরে আছেন। মঙ্গলবার (৯ মে) তারা দেশে ফিরলে ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানির অনুমতির ব্যাপারে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত আসতে পারে।

তিনি বলেন, এ বিষয়ে জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের মহাপরিচালক এএইচএম সফিকুজ্জামানের সঙ্গে কথা হলে তিনিও এমন আশ্বাস দিয়েছেন।

তিনি আরও বলেন, এই আশায় আমরা আমদানিকারকেরা গত সাত দিনে প্রায় ২০ হাজার মেট্রিকটন পেঁয়াজ আমদানির অনুমতি চেয়ে কৃষি মন্ত্রণালয়ের খামারবাড়ীতে আবেদন করেছি।’

শহীদুল ইসলাম বলেন, ভারত থেকে আমদানি স্বাভাবিক থাকলে আজ পেঁয়াজের দামে এই অস্থিরতা সৃষ্টি হতো না। ভোক্তাদের বেশি দামে কিনতে হতো না। যেভাবে দাম বাড়ছে তাতে কোথায় গিয়ে ঠেকবে বলা মুশকিল।

পেঁয়াজের আরেক আমদানিকারক মো. মোবারক হোসেন বলেন, কৃষকদের ন্যায্যমুল্য নিশ্চিত করতে সরকার ভারত থেকে পেঁয়াজের আমদানি বন্ধ রেখেছে। আসলে কি কৃষকেরা সঠিক মুল্যে পেঁয়াজ বিক্রি করতে পারেন? লাভ তো করেন মজুদদাররা।

তিনি বলেন, দাম বাড়ায় ক্রেতাদের নাভিশ্বাস উঠেছে। বাজারে শুধু ভারতীয় পেঁয়াজ না থাকার সুযোগে অসৎ ব্যবসায়ীরা এই সুবিধা নিচ্ছে। বর্তমানে ভারত থেকে দেশে পেঁয়াজ আমদানি করে আনতে সবমিলে কেজিতে ২৪-২৫ টাকা পড়বে। তাই সব বিবেচনায় সরকার ভারত থেকে পেঁয়াজ আমদানিতে অনুমতি দিবে এই দাবি করছি।

এদিকে, সোমবার দুপুরে ভারতের ব্যাঙ্গালুরের পেঁয়াজ রপ্তানিকারক কুতুব মিয়া ও দেভানসি’র সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তারা জানান, ভারতের নাসিকসহ বিভিন্ন অঞ্চলে প্রতিকেজি পেঁয়াজ মানভেদে পাইকারি বিক্রি হচ্ছে ৭-১০ রুপিতে। এখানে পর্যাপ্ত পেঁয়াজের আবাদ হয়েছে। আমরা প্রস্তুত আছি বাংলাদেশে পেঁয়াজ রপ্তানি করতে। শুনেছি বাংলাদেশে দাম বেড়েছে। এখানকার পেঁয়াজ ওদেশে (বাংলাদেশ) গেলে সেখানে দাম অনেক কমে যাবে।

হিলি স্থলবন্দর উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-সহকারী সংগনিরোধ কর্মকর্তা মো. ইউসুফ আলী জানান, শুনেছি আমদানিকারকেরা পেঁয়াজ আমদানি জন্য খামারবাড়ীতে অনলাইনে আবেদন করেছেন। সরকার হয়ত বিবেচনায় নিতে পারেন। কারণ বাজারে প্রতিনিয়ত দাম বাড়ছে।

তিনি আরও জানান, দেশের কৃষকদের উদপাদিত পেঁয়াজের ন্যায্যমূল্য নিশ্চিত করতে কৃষি মন্ত্রণালয় গত ১৫ মার্চ পর্যন্ত পেঁয়াজ আমদানিতে অনুমতি (আইপি) দিয়েছিল। এরপর থেকে হিলি স্থলবন্দর দিয়ে পেঁয়াজ আমদানি বন্ধ হয়ে যায়।

—-ইউএনবি