December 1, 2022

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Wednesday, October 26th, 2022, 7:01 pm

ফুরফুরে মেজাজে রাকুল প্রীত

অনলাইন ডেস্ক :

বলিউড অভিনেত্রী রাকুল প্রীত এ বছর বেশ ফুরফুরে মেজাজেই আছেন। এক বছরে পাঁচটি চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছে তাঁর। মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে আরো বেশ কিছু চলচ্চিত্র। সম্প্রতি রাকুলের মুক্তিপ্রাপ্ত ‘ডক্টর জি’ সিনেমাটিও বেশ প্রশংসিত হয়েছে। সাম্প্রতিক এক সাক্ষাৎকারে রাকুল তাঁর মুক্তিপ্রাপ্ত সিনেমা ও তাঁর ব্যক্তিগত কিছু বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন। সম্প্রতি মুক্তিপ্রাপ্ত অনুভূতি কাশ্যপের পরিচালনায় ‘ডক্টর জি’তে আয়ুষ্মান খুরানা প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন। একজন অর্থোপেডিক ডাক্তার হওয়ার স্বপ্ন থাকার পরেও শেষ পর্যন্ত মহিলা গাইনোকোলজিস্ট হিসেবে আয়ুষ্মান খুরানার নাজেহাল পরিস্থিতিতে পড়া ও নারীদের গর্ভাবস্থা সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো পর্দায় ফুটিয়ে তোলা হয়েছে সিনেমাটিতে। সিনেমায় রাকুল প্রীত স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ ড. ফাতিমার চরিত্রে অভিনয় করেছেন, যিনি এই সিনেমায় আয়ুষ্মান খুরানার একজন বন্ধু। সাম্প্রতিক সাক্ষাৎকারে সিনেমাটির বিষয়ে রাকুল প্রীত বলেন, “আমি মনে করি প্রতিটি সফল পুরুষের পেছনে একজন নারী থাকে এবং প্রতিটি সফল নারীর পেছনে একজন পুরুষ থাকে। এরা আপনার যাত্রায় সাপোর্টিং হিসেবে কাজ করে এবং এরাও সমান গুরুত্বপূর্ণ। ‘ডক্টর জি’তে আমি এমন একটি সাপোর্টিং এবং মজাদার চরিত্রে অভিনয় করেছি। ’সিনেমাটি সম্পর্কে অভিনেত্রী আরো বলেন, ‘আমি প্রথম সিনেমাটির গল্প পছন্দ করেছি। এটি সেই চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে একটি, যেটির স্ক্রিপ্ট শোনামাত্র আমি এটি শুরু করার অপেক্ষায় ছিলাম। ‘ডক্টর জি’ সম্পর্কে দুর্দান্ত ব্যাপার হলো এটি একটি উপভোগ্য ও মজার ফিল্ম। সিনেমার পাশাপাশি নিজের ব্যক্তিগত জীবন নিয়েও সাক্ষাৎকারে কথা বলেন রাকুল। নিজের শিক্ষাগত বিষয়ে গণিতের ছাত্রী রাকুল বলেন, “আমি সেই কয়েকজন মেয়ের মধ্যে একজন, যারা গণিত পছন্দ করত। আমি সংখ্যা নিয়ে খেলতে সত্যিই উপভোগ করতাম। ফিন্যান্স বা ব্র্যান্ড ম্যানেজমেন্টে এমবিএ করার পরিকল্পনা করেছিলাম। কিন্তু ধীরে ধীরে মডেলিং এবং অবশেষে সিনেমায় নিয়মিত হয়ে পড়ি। ’ সাক্ষাৎকারে নিজের ব্যস্ততম শিডিওল সম্পর্কে কথা বলতে গিয়ে অভিনেত্রী বলেন, ‘যদিও প্রচ- ব্যস্ততার একটি বছর যাচ্ছে, তবে আমি ব্যস্ততা পছন্দ করি। কারণ আমি একজন আর্মি পরিবার থেকে এসেছি। আমার বাবা একজন আর্মি অফিসার। এমনকি যখন আমি ছোট ছিলাম, স্কুলের পরে সাঁতার, লন টেনিস, ব্যাডমিন্টন, স্কেটিং শেষে গল্ফের জন্য কোচিং করতাম। আমি ছুটতাম শুধু। অনেক পাগলামি করতাম। আমি এখনো পাগলামি করি। আমি মনে করি, ‘পাগলামিই আমার প্রশান্তি।০০৯ সালে কন্নড় চলচ্চিত্র ‘গিলি’র মাধ্যমে চলচ্চিত্র জগতে আত্মপ্রকাশ করেন রাকুল। দক্ষিণে বেশ কয়েকটি সিনেমায় কাজ করে নিজের অবস্থান তৈরি করে নেন তিনি। এরপর ২০১৪ সালে ‘ইয়ারিয়া’ সিনেমার মাধ্যমে বলিউডে পা রাখেন রাকুল। তারপর আর পেছনে ফিরে তাকাতে হয়নি অভিনেত্রীকে। দক্ষিণের তামিল, তেলুগু, এমনকি মালয়ালাম ইন্ডাস্ট্রিতেও সমানভাবে কাজ করেছেন তিনি। এই বছর তাঁর পাঁচটি চলচ্চিত্র মুক্তি পেয়েছে। জন আব্রাহামের সঙ্গে ‘অ্যাটাক’, অজয় দেবগনের সঙ্গে ‘রানওয়ে ৩৪’, অক্ষয় কুমারের সঙ্গে ‘কাটপুতলি’, আয়ুষ্মান খুরানার সঙ্গে ‘ডক্টর জি’ ও অজয় দেবগনের সঙ্গে ‘থ্যাঙ্ক গড’। হাতে রয়েছে বেশ কয়েকটি সিনেমার কাজ। এ বছরের পাশাপাশি আগামী বছরটাও যে বেশ ভালো কাটতে যাচ্ছে অভিনেত্রীর, তাতে সন্দেহ নেই! সূত্র : সিনেমা এক্সপ্রেস।