July 25, 2024

The New Nation | Bangla Version

Bangladesh’s oldest English daily newspaper bangla online version

Friday, January 19th, 2024, 3:13 pm

সোনাই নদী পাড়ের মাটি রাতের আধারে গায়েব!

জেলা প্রতিনিধি, ব্রাহ্মণবাড়িয়া (বিজয়নগর):

ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রতিনিধি, ব্রাহ্মণবাড়িয়ার বিজয়নগর উপজেলা প্রশাসনকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে আইন অমান্য করে রাতের আঁধারে সোনাই নদীর পাড় কেটে মাটি কেটে নিয়ে যাচ্ছে দুর্বৃত্তরা।

এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে এলাকার কৃষক। এ বিষয়ে প্রশাসন অবগত থাকলেও এর কোন প্রতিকার হচ্ছে না।

সরেজমনিকে দেখা যায়, উপজেলার বুধন্তি ইউনিয়নের বুধন্তি গ্রামের পশ্চিম আংশে বহমান ৮ কিমি সোনাই নদী , সরকার ২০১৯-২০ অর্থ বছরে কোটি কোটি টাকা ব্যয় করে নদী খনন করে এর মাটি দু পাড়ে স্তুপ আকারে রাখে, দলের প্রভাব খাটিয়ে প্রভাবশালী মহল তা কেটে ব্রিক ফিল্ডে বিক্রি করে কামিয়ে নিচ্ছে লক্ষ লক্ষ টাকা, নেতাদের সহযোগে ব্যক্তির পকেটে লক্ষ লক্ষ টাকায় পকেট ভারি করলেও এতে মহাক্ষতির সম্মুখীন এলাকার কৃষকরা,বর্ষার পানিতে ফসল যেন‌ নষ্ট না হয় সেজন্য নদীর পাড় থাকা অবশ্যক, নদীর পাড় না থাকায় অল্প পানিতেই ফসল তলিয়ে গিয়ে ফসল নষ্ট হয়ে কৃষকের ভাগ্য খেয়ে ফেলছে তাহারা।

এ বিষয়ে এলাকার জনসাধারণের সাথে কথা বলে জানা যায়, শশই গ্রামের সাবেক মেম্বার সুলেমান (৪৫) ও তার ভাই ওসমান (৪৩) এবং বুধন্তি গ্রামের তৈয়ব আলী মেয়ার ছেলে মনির (৪২) সরকারি দলের নাম ভাঙিয়ে এসব অপকর্ম করছে, সংশ্লিষ্ট সকল প্রশাসনিক সকল দপ্তর এ বিষয়ে অবগত থাকার পরেও এর কোন ব্যবস্থা হচ্ছে না ।
সরকারের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ এ বিষয়ে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণ করার জোর দাবি জানিয়েছে।

তারা আরো জানায় উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহেদী হাসান (শাওন) গত বছর সরেজমিনে তদন্ত করে এর প্রমাণ পেয়ে এলাকার কৃষক জনসাধারণের সাক্ষীর ভিত্তিতে উপজেলা বুধন্তি ইউনিয়নের বুধন্তি গ্রামের তৈয়ব আলীর ছেলে মনির (৪৩) বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করে।

এ বছর আবার নতুন উদ্যোমে সে মাটি কাটছে শুরু করে। এশার নামাজের পর থেকে সকাল ৮ টা পর্যন্ত এস্কাব্যাটরের সাহায্যে খনন এবং ট্রাক্টরের সাহায্যে মাটি পাচার চলতে থাকে।
আরো অনেকে রাঘববোয়াল আছে যাদের নাম তারা নিরাপত্তার স্বার্থে মুখ খুলে বলে না।

কৃষকের ভাগ্য খেকোদের খুটির জোর কোথায় প্রশ্নের জবাবে এলাকার জনসাধারণ জানায় সাবেক মে¤॥^ার সোলেমান ও তার ভাই ওসমান বিএনপির অঙ্গ সংগঠনের জড়িত এবং মনির সে সরকার দলীয় স্বেচ্ছাসেবকলীগের সদস্য।

এ বিষয়ে সদর সার্কেল মো, বিলাল হোসেন এর সাথে কথা বলে তিনি জানান এ বিষয়ে পুলিশ সর্বাত্মক সহযোগিতা করবে কিন্তু
ইসলামপুর পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ রন্ধন কুমার ঘোষ জানায়, এ দায়িত্ব উপজেলা প্রশাসনের, তাদের নিরাপত্তা রক্ষার্থে আমরা সর্বদা নিয়োজিত আছি।

এ বিষয়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুবাইয়া আফরোজ এবং সহকারী কমিশনার (ভূমি) মেহেদী হাসান শাউনের সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বুধন্তি ভূমি উপসহকারী কর্মকর্তা কাজল বনিককে এ বিষয়ে ব্যবস্থা নেওয়ার দায়িত্ব দেওয়ার কথা বলেন।